৮ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
প্রধানমন্ত্রী ‘নেতা মোদের শেখ মুজিব’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করলেন ৫ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ইমনকে ছেড়ে দিয়েছে র‍্যাব এ বছর ‘বেগম রোকেয়া’ পদক পাচ্ছেন ৫ নারী নির্বাচিত একজন জনপ্রতিনিধিকে চাইলেই সরিয়ে দেয়া যায় না : হাছান মাহমুদ ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন মুরাদ হাসান পদত্যাগের পর এবার মুরাদের বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে : হানিফ মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা ফেসবুকের বিরুদ্ধে ১৫০ বিলিয়ন ডলারের ক্ষতিপূরণ মামলা সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগজি হত্যায় জড়িত সন্দেহভাজন একজনকে প্যারিসে গ্রেপ্তার অন্তঃসত্ত্বা বড় বোনকে শিরশ্ছেদ করে হত্যা লাকসাম বৈরী আবহাওয়া টানা বৃষ্টিতে থমকে গেছে জনজীবন
  • প্রচ্ছদ
  • ছবি ঘর >> টপ নিউজ >> ঢাকা >> দেশজুড়ে >> ব্যবসা বানিজ্য >> স্বাস্থ্য
  • টঙ্গী ফাতিমা জেনারেল হাসপাতালে চলছে মানুষের জীবন নিয়ে বানিজ্য – এ যেন দেখার কেউ নেই!!
  • টঙ্গী ফাতিমা জেনারেল হাসপাতালে চলছে মানুষের জীবন নিয়ে বানিজ্য – এ যেন দেখার কেউ নেই!!

    মোঃ আবু হাসান: গাজীপুর মহানগর টঙ্গী পূর্ব থানাধীন স্টেশন রোডে যত্র তত্র গড়ে উঠেছে ক্লিনিক এবং ডায়াগনষ্টিক সেন্টার। টঙ্গী পূর্ব থানা এবং সরকারি শহীদ আহসান উল্লাহ মাষ্টার জেনারেল হাসপাতালের সামনে যত্রতত্র গড়ে উঠেছে প্রাইভেট হাসপাতাল ও ডায়াগনষ্টিক সেন্টার। চিকিৎসার নাম করে প্রতিষ্ঠানগুলো প্রতিনিয়ত সাধারণ মানুষের জীবন নিয়ে ছিনি মিনি খেলছে – এ যেন দেখার কেউ নেই ?

    মানুষ আল্লাহর পর ডাক্তারকে বিশ্বাস করে চিকিৎসা সেবা নিতে আসে। কিন্তু প্রাইভেট হাসপাতাল গুলো চিকিৎসার নামে করছে অপচিকিৎসা। প্রতিটি প্রাইভেট হাসপাতালেই রয়েছে দালাল সিন্ডিকেট, এই দালাল চক্রটি সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা। সাধারণ মানুষ তাদের কথায় কোন প্রতিবাদ করতে পারে না। এমনি এক ঘটনা গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮ ঘটিকার সময় টঙ্গী ফাতিমা জেনারেল হাসপাতালে জান্নাতুল ফেরদৌস (৪০) নামের এক গর্ভবতী মহিলা তার স্বামী আলমগীরকে সঙ্গে নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। সকাল থেকে ডাক্তার আসবে আসবে বলে সারাদিন পার হয়ে যায় কিন্তু ডাক্তারের কোন খবর নাই। দুপুর ২ টার দিকে ফাতিমা জেনারেল হাসপাতালের কর্মচারী জানাই আপনার পেটের বাচ্চা মারা গেছে। আমরা চেষ্টা করে দেখি নর্মাল ডেলিভারি করাতে পারি কি না? এই কথা বলে তারা রোগীকে হাসপাতালেই রেখে দেয়।

    ডাক্তার আসবে আসবে করে দুপুর গড়িয়ে সন্ধ্যা হয়ে যায়। তবুও তারা কোন চিকিৎসা না করে রোগীকে অবহেলা করে ফেলে রাখে। রাত ৯ টার দিকে যখন রোগীর অবস্থার অবনতি হয় তখন হাসপাতালের কর্মচারীগণ তড়িঘড়ি করে রোগীকে অন্যত্র পাঠানোর চেষ্টা করে। ফাতিমা জেনারেল হাসপাতালের দালালরা আশঙ্কাজনক অবস্থায় রোগীকে নিয়ে উত্তরা ১১ নং সেক্টরের লেক ভিউ হাসপাতালে ভর্তি করে।

    এ বিষয়ে রোগীর স্বামী আলমগীর জানান ফাতিমা জেনারেল হাসপাতাল কতৃপক্ষের অবহেলায় আজ আমার স্ত্রীর এই অবস্থা, এর বিচার চাই। ফাতিমা জেনারেল হাসপাতালের লোকজনের সঙ্গে কথা বলতে গেলে কেঊ কথা বলতে রাজি হননি।

    সাংবাদিককে ম্যানেজ করার জন্য হাসপাতালের দালাল মিরাজ এগিয়ে আসে এবং টাকা দেওয়ার চেষ্টা করে। পরবর্তীতে হাসপাতালের মালিক ডাক্তার ফাতেমা দোলনের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি অন্য লোক দিয়ে ফোন রিসিভ করান এবং তিনি বলেন ম্যডাম ব্যস্ত আছে পরে ফোন দিয়েন বলে রেখে দেন।

    ভূক্তভোগী ও এলাকাবাসীর দাবী ফাতিমা জেনারেল হাসপাতালের মালিকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে, বিচারের আওতায় আনার জোর দাবী জানান। গাজীপুর সিভিল সার্জনের দৃষ্টি আকর্ষণ করচ্ছে রোগীর স্বজনরা.(অনুসন্ধান ধারাবাহিক চলবে)

    আরও পড়ুন