৮ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
প্রধানমন্ত্রী ‘নেতা মোদের শেখ মুজিব’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করলেন ৫ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ইমনকে ছেড়ে দিয়েছে র‍্যাব এ বছর ‘বেগম রোকেয়া’ পদক পাচ্ছেন ৫ নারী নির্বাচিত একজন জনপ্রতিনিধিকে চাইলেই সরিয়ে দেয়া যায় না : হাছান মাহমুদ ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন মুরাদ হাসান পদত্যাগের পর এবার মুরাদের বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে : হানিফ মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা ফেসবুকের বিরুদ্ধে ১৫০ বিলিয়ন ডলারের ক্ষতিপূরণ মামলা সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগজি হত্যায় জড়িত সন্দেহভাজন একজনকে প্যারিসে গ্রেপ্তার অন্তঃসত্ত্বা বড় বোনকে শিরশ্ছেদ করে হত্যা লাকসাম বৈরী আবহাওয়া টানা বৃষ্টিতে থমকে গেছে জনজীবন
  • প্রচ্ছদ
  • ছবি ঘর >> জাতীয় >> টপ নিউজ >> প্রশাসন >> মিডিয়া >> লিড
  • ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন সনদ পেতে ব্যাপক দুর্নীতি ও ভোগান্তির অভিযোগ এ যেনো দুর্নীতি আখড়া!
  • ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন সনদ পেতে ব্যাপক দুর্নীতি ও ভোগান্তির অভিযোগ এ যেনো দুর্নীতি আখড়া!

    অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহের ক্ষেত্রে নানা জটিলতার মুখে পড়তে হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে ।এ বছরের জানুয়ারি মাসের এক তারিখ থেকে স্কুলে ভর্তি, এসএসসি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশন, পাসপোর্টের জন্য আবেদনসহ আরো কিছু ক্ষেত্রে জন্ম নিবন্ধন সনদ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। কিন্তু অভিযোগকারীরা বলছেন, অনলাইনে আবেদন করার প্রক্রিয়ায় সমন্বয়হীনতা ও অব্যবস্থাপনার কারণে তাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

    ভুক্তভোগী : ভুক্তভোগী বছর দু’য়েক আগে নদী ভাঙনে ঘর হারানোর পর শেফালি আক্তার পুরনো ঢাকায় একটি ভাড়া বাসায় দুই সন্তান নিয়ে বসবাস শুরু করেন। আগামী বছর দুই সন্তানকে স্থানীয় একটি স্কুলে ভর্তি করাতে চান। তাই স্কুলের নিয়ম অনুযায়ী সন্তানদের জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের একটি আঞ্চলিক অফিসে। কিন্তু তার ঠিকানা যাচাই সংক্রান্ত জটিলতা তৈরি হওয়ায় তিন-চারদিন ঘুরেও পারেন নি সনদ জোগাড় করতে।

    শেফালি আক্তার বলছেন, নদীর ভাঙনে ঘর হারানোর পর তার স্থায়ী ঠিকানা বলে কিছু নেই। তাই নিবন্ধন ফর্মে বর্তমান ঠিকানার জায়গায় ভাড়া বাসার ঠিকানা সংযুক্ত করে ঐ বাসার বিদ্যুৎ বিলের কপি নিয়ে গিয়েছিলেন প্রমাণ হিসেবে। কিন্তু বিদ্যুৎ বিলে বাড়িওয়ালার নাম থাকায় নিবন্ধন অফিসের কর্মকর্তারা তার আবেদন গ্রহণ করেনি বলে অভিযোগ করেন তিনি।

    তিনি বলেন, “কর্মকর্তারা বলছেন বিদ্যুৎ বিলে আমার নাম না থাকলে তা গ্রহণযোগ্য হবে না। কিন্তু আমি ভাড়া বাসায় থাকি, বিলে আমার নাম কীভাবে থাকবে?” “তারা আবেদনপত্র গ্রহণও করছে না, সমস্যার সমাধান কীভাবে করা যাবে তাও বলছে না। এখন পর্যন্ত জানি না সনদ কীভাবে পাবো।”

    আরেক ভুক্তভোগী : সন্তানদের জন্য জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন চট্টগ্রামের পটিয়ার বাসিন্দা সাজিয়া আক্তারও। বর্তমান নিয়ম অনুযায়ী, ২০০১ সালের পর যাদের জন্ম তাদের জন্ম নিবন্ধন সনদ করতে বাবা-মা’র জন্ম নিবন্ধন নম্বর প্রয়োজন হয়। কাজেই সন্তানদের জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করতে মিজ আকতারের নিজেরও নতুন করে জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরির প্রয়োজন পড়ে।নিজের জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করতে গিয়ে নতুন ঝামেলায় পড়েন তিনি।

    “আমার বাপের বাড়ি যে ইউনিয়নে, ফর্ম পূরণ করে সেই ইউনিয়ন পরিষদ অফিসে যাওয়ার পর বলে যে আমার বাবা-মা’র জন্ম নিবন্ধন নম্বর লাগবে। আমার বাবা-মা অনেক বছর আগেই মারা গেছেন, এখন তাদের জন্ম নিবন্ধন কীভাবে করবো।”

    সাজিয়া আক্তারের মত একই অভিযোগ পাওয়া গেছে আরো বেশ কয়েকজনের কাছ থেকে। যদিও নিয়ম অনুযায়ী ২০০১ সালের আগে যাদের জন্ম তাদের জন্ম নিবন্ধন করতে শুধু জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর প্রয়োজন হওয়ার কথা।

    আরেকজন ভুক্তভোগী : সন্তানদের জন্ম নিবন্ধন সনদ করাতে গিয়ে আজিমপুরের বাসিন্দা মনিরুজ্জামান উজ্জলের অভিজ্ঞতা আরো হতাশাজনক।

    তিনি বলছিলেন, “আমার দুই সন্তানের জন্ম নিবন্ধন সনদ করানো ছিল, কিন্তু সেখানে তাদের মায়ের নামে ভুল ছিল। পরে সেটি সংশোধন করি এবং গত বছরের সেপ্টেম্বরে আমার কাছে আমার দুই সন্তানের জন্ম নিবন্ধন সনদের প্রিন্ট করা কপি হস্তান্তর করা হয়, যেটিতে সনদের দায়িত্বে থাকা আঞ্চলিক কর্মকর্তা ও দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসকের স্বাক্ষরও ছিল।”

    “কিন্তু কিছুদিন আগে সন্তানদের পাসপোর্ট করাতে গিয়ে ঐ ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন সনদের নম্বর দেয়ার পর দেখি ঐ নম্বর গ্রহণ করছে না। পরে জন্ম নিবন্ধন অফিসে যোগাযোগ করলে তারা জানায় যে আমার সন্তানদের ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন করাই হয়নি।” “অর্থাৎ ডেটাবেসে তাদের জন্ম নিবন্ধনের তথ্য নেই, যদিও আমার কাছে সনদের প্রিন্ট করা কপি রয়েছে।” সমস্যার সমাধান সম্পর্কে জানতে চাইলে মি. উজ্জলকে বলা হয় সংশোধনের জন্য আবেদন করতে।

    সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সমন্বয়হীনতা, প্রক্রিয়া নিয়ে কর্মকর্তাদের স্বচ্ছ ধারণার অভাব, দুর্নীতিসহ নানা অভিযোগ করছেন আবেদনকারীরা।

    সনদ সংগ্রহে আরো যেসব অভিযোগ রয়েছে : ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে যাওয়া ব্যক্তিরা অভিযোগ করছেন সনদ সংগ্রহ করার ক্ষেত্রে এমন হরেক রকম সমস্যায় পড়তে হচ্ছে তাদের।অধিকাংশই বলছেন ইউনিয়ন, পৌরসভা বা সিটি কর্পোরেশনের নির্ধারিত জন্ম নিবন্ধন কার্যালয়ে গিয়ে প্রত্যাশিত সেবা তো তারা পাচ্ছেনই না, উপরন্তু পোহাতে হচ্ছে ব্যাপক দুর্ভোগ।

    অনেকেই বলছেন কার্যালয়গুলোতে উপস্থিত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা নাগরিকদের স্পষ্ট কোনো নির্দেশনা দিচ্ছেন না। সনদ সংশোধনের ক্ষেত্রেও নির্ধারিত সময়ের চেয়ে অনেক বেশি সময় লাগছে বলে দাবি সনদ নিতে আসা অনেকের।

    মনিরুজ্জামান উজ্জল তার এলাকার জন্ম নিবন্ধন কার্যালয়ের সেবার মান নিয়ে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে মন্তব্য করেন, “আমি বেশ কয়েকবার সেখানে গিয়েছি। সেখানকার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অধিকাংশই আবেদনকারীদের সমস্যার সমাধান দিতে পারে না। অনেক সময় কোনো তথ্য জানতে চাইলেও স্পষ্টভাবে উত্তর দেয় না।”

    আগে সন্তানের জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করতে বাবা-মা’র জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর প্রয়োজন হলেও এই বছরের শুরু থেকে নিয়মে পরিবর্তন এনেছে সরকার। আর তারপর থেকেই দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন বলে বলছেন আবেদনকারীরা।

    এ বছরের জানুয়ারি মাসের এক তারিখ থেকে ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করার বাধ্যবাধকতা জারি করা হয়। তবে সার্ভার সংক্রান্ত জটিলতা থাকায় শুরুতে বেশ কিছুদিন নতুন নিবন্ধন বা সংশোধনের কাজ বন্ধ ছিল বলে অভিযোগ রয়েছে।

    তবে যান্ত্রিক ত্রুটি ছাড়াও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সমন্বয়হীনতার, প্রক্রিয়া নিয়ে কর্মকর্তাদের স্বচ্ছ ধারণার অভাব, দুর্নীতি সহ নানা অভিযোগ করছেন নাগরিকরা।

    পাসপোর্ট : পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতেও জন্ম নিবন্ধন সনদ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।সনদ দেয়ার ক্ষেত্রে দুর্নীতির অভিযোগ। বর্তমানে যে প্রক্রিয়া চালু রয়েছে সে অনুযায়ী অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন সনদের ফর্ম পূরণ করে অনলাইনেই তা জমা দেয়া যায়।

    অনলাইনে ফর্ম জমা দেয়ার ১৫দিন পর ফর্ম প্রিন্ট করে সাথে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংযুক্ত করে আঞ্চলিক জন্ম নিবন্ধন অফিসে গিয়ে জমা দিতে হয়। এরপর দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেসব কাগজপত্র যাচাই সাপেক্ষে কিছুদিন পর জন্ম নিবন্ধন সনদ দিয়ে থাকেন।

    বয়স ভেদে জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে সরকার নির্ধারিত ফি ২৫ থেকে ৫০ টাকা, আর সনদে সংশোধনের ক্ষেত্রে প্রয়োজন হয় ৫০ থেকে ১০০ টাকা। এর বাইরে জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে আর কোনো টাকা দিতে হয় না।

    কিন্তু সনদ দেয়ার ক্ষেত্রে ব্যাপক দুর্নীতি হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। কয়েকজন ভুক্তভোগী বলছেন, যেসব আঞ্চলিক কার্যালয়ে জন্ম নিবন্ধন সনদ দেয়া হয়, সেখানে দালালদের প্রভাব ব্যাপক।

    নাম প্রকাশ না করার শর্তে কুমিল্লার দাউদকান্দির এক ব্যক্তি বলেন, “আমি যেহেতু ব্যবসা করি, তাই কাজ ফেলে বারবার নিবন্ধন কার্যালয়ে যাওয়ার সময় নেই। জুলাই মাসে একবার গিয়েছিলাম, সেবারই এক দালাল ধরি। তাকে ছয় হাজার টাকা দেই চারটি সনদ তৈরি করে দেয়ার জন্য। দুই সপ্তাহের কম সময়ে সনদ হাতে পেয়ে যাই।”

    একই ধরনের অভিজ্ঞতার কথা জানা যায় নারায়ণগঞ্জের এক স্কুল শিক্ষিকার কাছে। তিনি বলেন দালালকে টাকা দেয়ার পর ট্যাক্স পরিশোধের রশিদও – যেটি সনদ পাওয়ার জন্য অত্যাবশ্যকীয় একটি কাগজ – জমা দিতে হয়নি তাকে।

    কর্তৃপক্ষ বলছে, ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরির দায়িত্বে রয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগের রেজিস্ট্রার জেনারেলের কার্যালয়। কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার জেনারেল মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী সনদ তৈরিতে দুর্নীতির অভিযোগ একেবারে উড়িয়ে না দিলেও বলছেন ডিজিটাল পদ্ধতিতে এই ধরনের দুর্নীতি হওয়ার সুযোগ খুবই কম।

    মি. ফারুকী বলেন, “অনলাইনে ফর্ম পূরণ করে জমা দিতে হবে, তারপর নির্দিষ্ট সময় পর নির্দিষ্ট কার্যালয়ে কাগজপত্র জমা দিতে হবে। কাগজপত্র ঠিক থাকলে নির্দিষ্ট সময় পর গিয়ে সনদ তুলতে হবে। সংশোধনের ক্ষেত্রেও অনলাইনে ফর্ম পূরণ করতে হবে। এই পদ্ধতিতে টাকা দিয়ে আগে সনদ পাওয়ার সুযোগ নেই বললেই চলে।”

    তবে মি. ফারুকী দালালদের প্রভাব ও দুর্নীতির অভিযোগকে খুব একটা গুরুত্ব না দিলেও বেশ কয়েকজন এই দাবি করেন যে দালালকে টাকা দিয়ে অপেক্ষাকৃত কম ভোগান্তিতে এবং কম সময়ে তারা জন্ম নিবন্ধন সনদ পেয়েছেন।

    এমনকি ফেসবুকে বেশ কয়েকটি গ্রুপ দেখা গেছে যেখানে নির্দিষ্ট ফি’র বিনিময়ে কয়েকদিনের মধ্যে জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করে দেয়া হয় বলে দাবি করা হয়েছে। সেসব গ্রুপের কয়েকটির বিভিন্ন পোস্টের কমেন্ট সেকশনে কয়েকজন নাগরিক দাবি করেছেন যে তারা প্রতিশ্রুতি মত সনদ পেয়েছেন। তবে তাদের সেসব দাবি নিরপেক্ষভাবে যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

    পরীক্ষার্থী : এসএসসি পরীক্ষার রেজিস্ট্রেশনের জন্য জন্ম নিবন্ধন সনদ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।এছাড়া প্রয়োজনে বাবা-মা’র নিবন্ধন, যথাযথ কাগজপত্র সত্যায়ন বা সংযুক্ত করার ক্ষেত্রে মানুষ যেসব সমস্যার মধ্যে পড়ছেন, সেগুলোর জন্য প্রধানত মানুষের অজ্ঞতা দায়ী বলে মনে করছেন রেজিস্ট্রার জেনারেল মি. ফারুকী।

    “আমাদের দেশে অধিকাংশ মানুষই এখনো অনলাইন কার্যক্রমের সাথে অভ্যস্ত নয়। কাগজ কোথায় সংযুক্ত করতে হবে, অনলাইন ফর্মে কীভাবে কি পূরণ করা হবে – সেজন্যই মূলত সমস্যাগুলো তৈরি হচ্ছে,” বলেন তিনি।

    তবে সনদ সংশোধনের ক্ষেত্রে যে স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি সময় লাগছে, তা স্বীকার করেন তিনি।”সংশোধনের আবেদন ইউনিয়নের ক্ষেত্রে যায় ইউএনও’র কাছে, জেলার ক্ষেত্রে যায় জেলা প্রশাসকের কাছে। সেসব দপ্তরে স্বাভাবিকভাবে অনেক সময়ই ব্যস্ততার কারণে নির্ধারিত সময়ে সেবা দেয়া সম্ভব হয় না।”

    তবে মজার বিষয় হলো, জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরির প্রক্রিয়া নিয়ে এত অভিযোগ থাকলেও বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার চেয়ে জন্ম নিবন্ধন সনদের পরিমাণ বেশি।

    বাংলাদেশ ব্যুরো অব স্ট্যাটিস্টিকসের এ বছরে প্রকাশিত হিসেব অনুযায়ী বাংলাদেশের জনসংখ্যা ১৬ কোটি ৯১ লাখ। আর রেজিস্ট্রার জেনারেলের কার্যালয়ের হিসেব অনুযায়ী এ বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মোট জন্ম নিবন্ধন সনদের সংখ্যা ছিল প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি।

    রেজিস্ট্রার জেনারেল মোস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী জানান ২০১০ সালের আগে নিবন্ধন করা অনেক জন্ম নিবন্ধন সনদ ডেটাবেসে যুক্ত করা হয়েছে। এরপর ডিজিটাল নিবন্ধন শুরু হওয়ার পর আগের নিবন্ধন করা অনেকে ডিজিটাল নিবন্ধন করেছেন, ফলে এমন অনেকেই আছেন যাদের ডেটাবেসে দুই-তিনবার নাম রয়েছে।

    মি. ফারুকী জানান মোট নিবন্ধনের সংখ্যার এই তালিকা হালনাগাদ করার কাজ চলছে।

    আরও পড়ুন