১৭ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ৩রা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা ২৭টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর আগামী পাঁচ বছরের জন্য যারা নেতৃত্ব দিবেন নাসিক নির্বাচনে তৃতীয় বারের মত আইভী জয়ী নাসিক নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষ চলছে গণনা গভীর রাতে শীতার্ত অসহায় মানুষের পাশে সাপাহার থানার ওসি চিরিরবন্দরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের করোনা ভ্যাকসিন ১ম ডোজের টিকা প্রদান চিরিরবন্দরে শ‍্যামলী পরিবহন- অটো মুখোমুখি সংঘর্ষে, নিহত-২ আহত ১ ইভিএমের মাধ্যমে ভোট গ্রহন চলছে, ভোটারদের উপস্থিতি কম অমিক্রন প্রতিরোধে বেনাপোল ইমিগ্রেশন উদাসীন ! “৮ মাসের শিশু” অপহরণের ৭২ ঘন্টার মধ্যে ঢাকার উত্তরা থেকে উদ্ধার
  • প্রচ্ছদ
  • ছবি ঘর >> জাতীয় >> টপ নিউজ >> প্রধানমন্ত্রী >> মিডিয়া >> লিড >> শিক্ষা
  • বিশ্ববিদ্যালয় খোলার অগ্রগতি জানতে চান প্রধানমন্ত্রী
  • বিশ্ববিদ্যালয় খোলার অগ্রগতি জানতে চান প্রধানমন্ত্রী

    সোমবার (৪ অক্টোবর) মন্ত্রিসভার বৈঠকে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার অগ্রগতি জানতে চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি দেরির কারণ জিজ্ঞেস করেন। জবাবে শিক্ষামন্ত্রী জানান, বিশ্ববিদ্যালয় চলে নিজস্ব বিধানে। পাশাপাশি দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় হলগুলো থাকার অনুপোযোগী হয়ে আছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। তবে এ মাসের মধ্যেই সব বিশ্ববিদ্যালয় খুলে যাবে বলে মন্ত্রিসভায় অবহিত করেন শিক্ষামন্ত্রী।

    ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিবও জানিয়েছেন, অক্টোবরেই সব বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়া হবে। ঘোষিত সময়েই হবে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা।

    করোনার সংক্রমণ কমায় ১২ সেপ্টেম্বর থেকে ধাপে ধাপে স্কুল ও কলেজ খুলেছে। কিন্তু এখনও খোলেনি বিশ্ববিদ্যালয়। তবে বড় কোনো বিপর্যয় না ঘটলে ঘোষিত তারিখ অনুযায়ী এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বলেও প্রধানমন্ত্রীকে জানান শিক্ষামন্ত্রী। এসময় ১৮ বছরের কম বয়সীদের ভ্যাকসিন দেয়ার ব্যাপারে টেকনিক্যাল বিষয় খতিয়ে দেখতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

    বৈঠকে পৌরসভা আইনের সংশোধনী প্রস্তাবের চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এছাড়া ৫ বছর মেয়াদের পর মেয়র ও কাউন্সিলররা আর পদে থাকতে পারবেন না, এই বিধান রেখে আইনের সংশোধনী প্রস্তাবও পাশ হয়েছে মন্ত্রীপরিষদের বৈঠকে।

    মন্ত্রিসভায় অত্যাবশক পরিষেবা আইনের খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়। বলা হয়, সরকার কোনো পরিসেবাকে জরুরি ঘোষণা করলে সেখানে ধর্মঘট, লেঅফ বা বন্ধ ঘোষণা করা যাবে না।

    আরও পড়ুন