১৬ই জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২রা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
ইভিএমের মাধ্যমে ভোট গ্রহন চলছে, ভোটারদের উপস্থিতি কম অমিক্রন প্রতিরোধে বেনাপোল ইমিগ্রেশন উদাসীন ! “৮ মাসের শিশু” অপহরণের ৭২ ঘন্টার মধ্যে ঢাকার উত্তরা থেকে উদ্ধার অনলাইন নয়, জবিতে ক্লাস চলবে সশরীরে স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের মিছিল ও জনসংযোগ করেন সাপাহার মডেল প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন : সভাপতি মনিরুল, সম্পাদক নিখিল মাদারীপুরে প্রধান শিক্ষিকার নামে অনিয়মের অভিযোগ!! ব্যবস্থা নিচ্ছেনা স্থানীয় প্রশাসন শার্শা সদর ইউনিয়নে নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ও সদস্যদের দায়িত্বভার গ্রহন ঢাবিতে ‘সেকেন্ড টাইম’ পরীক্ষার দাবিতে শিক্ষার্থীদের অবস্থান জনপ্রতিনিধিরা জনগনের নিকট দায়বদ্ধ – আনোয়ার হোসেন
  • প্রচ্ছদ
  • অপরাধ >> আইন আদালত >> ছবি ঘর >> টপ নিউজ >> মিডিয়া >> লিড
  • ভয়ানক নারীপাচার চক্র বিদেশে পাচার করে দিতেন কথিত ডাক্তার লিটন
  • ভয়ানক নারীপাচার চক্র বিদেশে পাচার করে দিতেন কথিত ডাক্তার লিটন

    বিয়ে করে নিজের স্ত্রীকেই আবার বিদেশে পাচার করে দিতেন কথিত ডাক্তার লিটন। নানা রকম প্রলোভন দেখিয়ে বিদেশে নেওয়ার পরই বেরিয়ে আসতো তার আসল চেহারা। লিটনের খপ্পরে পড়ে ইরাকে পাচার হওয়া তারই এক স্ত্রীর গল্প থাকছে এই প্রতিবেদনে।

    ধরা যাক, বাগদাদফেরত সেই নারীর নাম সাহানা। উচ্চাকাঙ্ক্ষা যেখানে শেষ, শান্তির শুরু সেখানেই; পাচারের শিকার সাহানা এখন তা বুঝতে পারছেন। নানা চড়াই উৎরাই পার হয়ে এখন অনেকটা সুখেই কাটছে তার দিন। সাবলীল ভঙ্গিতে ইরাকে পাচার হওয়ার গল্প শোনালেও চোখের কোণার জলটুকু লুকোতে পারেননি।

    মেডিকেল সহকারি হিসেবে পড়াশোনা করে স্বপ্ন দেখেছিলেন ক্যারিয়ার গড়বেন বিদেশে। আর তাই নানা মাধ্যমে বিভিন্ন জনের সাথে যোগাযোগ করেন তিনি। শেষমেশ এক এজেন্সি থেকে তাকে প্রস্তাব দেয়া হয় ইরাকে পাড়ি জমানোর। উচ্চ বেতনের আশায় সে প্রস্তাব ফিরিয়ে দেননি সাহানা।

    সাহানার জীবনে ট্র্যাজিক গল্পের শুরু এখানেই। ইরাক থেকে ডাক্তার পরিচয় দেয়া প্রতারক লিটন সরাসরি ফোনে কথা বলেন বাংলাদেশে থাকা সাহানার সঙ্গে। ধীরে ধীরে সে ফোনালাপ রূপ নেয় প্রণয়ে, তারপর পরিণয়।

    এক পর্যায়ে বাংলাদেশ থেকে ভ্রমণ ভিসায় কৌশলে সাহানাকে নেয়া হয় দুবাই এবং এরপর সেখান থেকে ইরাকের রাজধানী বাগদাদে। সেখানে পৌঁছেই বুঝতে পারেন লিটনের প্রতারণার জালে জড়িয়েছেন তিনি। আর সব বুঝে ফেলায় তার ওপর নেমে আসে নির্যাতন। চোখের কোণায় জল নিয়ে যমুনা নিউজকে সেই ভয়াবহ দিনের কথা শোনালেন সাহানা।

    শেষপর্যন্ত অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে লিটনের ডেরা থেকে পালিয়ে ইরাকের একটি হাসপাতালে চাকরি নেন সাহানা। তবে সে কাজে আর মন বসেনি তার। বুক ভরে শ্বাস নেবার আশায় ফিরে আসেন দেশে। দেশে ফিরেই আইনের আশ্রয় নেন তিনি। তার অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয় কথিত ডাক্তার লিটন ও তার সহযোগীদের।

    যদিও মানবপাচারের বিশাল এই চক্রের অনেকেই এখনও পলাতক। তবে তাদের ধরতে প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে জানালেন র‍্যাব-৪ এর কমান্ডিং অফিসার মোজাম্মেল হক।

    সাহানার প্রত্যাশা, পাচারের সঙ্গে জড়িত সবাইকে আইনের মুখোমুখি করা হবে।

    আরও পড়ুন