৮ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
প্রধানমন্ত্রী ‘নেতা মোদের শেখ মুজিব’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করলেন ৫ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ইমনকে ছেড়ে দিয়েছে র‍্যাব এ বছর ‘বেগম রোকেয়া’ পদক পাচ্ছেন ৫ নারী নির্বাচিত একজন জনপ্রতিনিধিকে চাইলেই সরিয়ে দেয়া যায় না : হাছান মাহমুদ ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন মুরাদ হাসান পদত্যাগের পর এবার মুরাদের বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে : হানিফ মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা ফেসবুকের বিরুদ্ধে ১৫০ বিলিয়ন ডলারের ক্ষতিপূরণ মামলা সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগজি হত্যায় জড়িত সন্দেহভাজন একজনকে প্যারিসে গ্রেপ্তার অন্তঃসত্ত্বা বড় বোনকে শিরশ্ছেদ করে হত্যা লাকসাম বৈরী আবহাওয়া টানা বৃষ্টিতে থমকে গেছে জনজীবন
  • প্রচ্ছদ
  • অন্যান্য >> আওয়ামীলীগ >> ছবি ঘর >> টপ নিউজ >> দেশজুড়ে >> মিডিয়া >> রাজনীতি >> রাজশাহী >> লিড
  • স্বেচ্ছাসেবক ও যুবলীগ নেতার টেন্ডারবাজীর ভিডিও ভাইরাল
  • স্বেচ্ছাসেবক ও যুবলীগ নেতার টেন্ডারবাজীর ভিডিও ভাইরাল

    নাটোর: নাটোর সদর হাসপাতালের প্রায় চার কোটি টাকার একটি টেন্ডার শিডিউল নিয়ে স্বেচ্ছাসেবক ও যুবলীগ নেতার মধ্যে ধস্তাধস্তির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

    মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে হাসপাতালটির সামনে এই ঘটনা ঘটে। দুই মিনিট ৫১ সেকেন্ডের ভিডিওতে দেখা যায় জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল আযম স্বপন এবং জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বাসিরুর রহমান খান চৌধুরি এহিয়া টেন্ডার সিডিউলের কাগজ নিয়ে ধস্তাধস্তি করছেন। এসময় দু’জনের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। এতে ঐ এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

    একপর্যায়ে যুবলীগ সভাপতি এহিয়া শিডিউল ছিনতাই করে নিয়ে চলে যায়। পরে খবর পেয়ে জেলা ডিবি পুলিশ ও থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছান।

    এ বিষয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিউল আযম বলেন, মঙ্গলবার ঢাকার তিন ব্যবসায়ী সদর হাসপাতালের দরপত্র কেনার জন্য তার সহযোগিতা চান। এ কারণে তিনি হাসপাতালে গিয়েছিলেন। কিন্তু এহিয়া জোর করে তার হাত থেকে দরপত্র ছিনিয়ে নেন। ঘটনাটি তাৎক্ষনিক তিনি দলীয় নেতাসহ প্রশাসনের লোকজনকে অবগত করেছেন।

    বাসিরুর রহমান খান চৌধুরী এহিয়া অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, শফিউল আযম স্বপন কোনো দরপত্রই কেনেননি। তার কাছ থেকে দরপত্র ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ ভিত্তিহীন।

    সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবু সাদাদ জানান, সদর হাসপাতালের সামনে ঝামেলা হয়েছে এমন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। মঙ্গলবার রাত পর্যন্ত কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে তা খতিয়ে দেখে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

    সদর হাসপাতালের সহকারী পরিচালক পরিতোষ কুমার রায় বলেন, সম্প্রতি সদর হাসপাতালের ঔষধ, খাবার, সার্জিক্যাল সামগ্রী, আসবাবপত্রসহ মোট ছয়টি ভাগে প্রায় চার কোটি টাকার দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল। এসব সামগ্রী সরবরাহের জন্য ২৮ আগস্ট বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দরপত্র সংগ্রহের দিন ধার্য করা হয়। দরপত্র ছিনিয়ে নেয়ার ব্যাপারে তিনি অবগত নন। আর হাসপাতালের বাইরে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা দেখার দায়িত্ব হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নয়।

    আরও পড়ুন