২৩শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
বিদ্রোহী প্রার্থী হলে ভবিষ্যতে কোনো পদ-পদবি পাবেন না : মির্জা আজম এমপি জাহাঙ্গীর এর বাঁচার আকুতি, চিকিৎসার জন্য চান সহযোগিতা নারায়ণগঞ্জের মানুষ অসাম্প্রদায়িক, শান্তিপ্রিয় : এসপি জায়েদুল জামালপুর জেলা যুবদলের পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত জামালপুরে মাদক নির্মূল ফুটবল লীগের উদ্বোধন খুলনা জেলা ডিবি পুলিশের বিশেষ অভিযানে ডুমুরিয়া হতে গাঁজাসহ ১ জন গ্রেফতার পাইকগাছায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিবাহ বন্ধ ব্যাংকার মোরশেদের মামলা আড়াল করতেই মুনিয়ার নাটক? শার্শার নাভারণে জাতীয় সড়ক দিবস পালিত ১৯৪৭ সালে কাশ্মীরে পাকিস্তানের আগ্রাসন’কালো দিবস’ স্মরণে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত
  • প্রচ্ছদ
  • অপরাধ >> আইন আদালত >> ছবি ঘর >> টপ নিউজ >> ঢাকা >> দেশজুড়ে
  • পুলিস সুপারের হস্তক্ষেপ দাবী: ঋতু ও সাথী’র প্রতারনার হাত থেকে বাচঁতে অসহায় পরিবারের আকুতি
  • পুলিস সুপারের হস্তক্ষেপ দাবী: ঋতু ও সাথী’র প্রতারনার হাত থেকে বাচঁতে অসহায় পরিবারের আকুতি

    নিজস্ব সংবাদদাতাঃ মোটা অংকের টাকার লোভে উন্মাদ হয়ে সত্যকে আড়াল করে মিথ্যা ঘটনার নাটক সাজিয়ে দফায় দফায় মামলা দিয়ে হয়রানি করে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ জেলা রূপগঞ্জ থানার গন্ধবপুর এলাকার অসহায় নিরীহ এক পরিবারকে। মামলাতে ৭৪ বছরের বৃদ্ধকেও রেহাই দেননি বাদীপক্ষের টাকা লোভী সেই নারী। অর্থলোভী নারীর এ সকল অনৈতিক কাজে স্হানীয় একটি সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র জড়িত রয়েছে বলে ভুক্তভোগী পরিবারের দাবী। ভুক্তভোগী পরিবার বলেন এ সংঘবদ্ধ নারী চক্রটি এতটাই বেপরোয়া ও অসামাজিক তারা নিজেদেরকে বিশাল ক্ষমতাধর হিসেবে সর্বত্র জাহির করে থাকে। তারা নানা কৌশলে মানুষকে ফাসিয়ে টাকা হাতিয়ে নেন। তাদেরনাকি এতটাই প্রভাব তাদের কথায় রুপগঞ্জের থানা পুলিশ উঠবস করে। আর রুপগঞ্জে যাহারা সমাজ প্রতিনিধি ও সমাজের বিচারক তাদেরকে তার পরিবারের লোকজন টিকেটদিলে ক্ষমতা পান । তারা নিজেদের বংশগতভাবে এলাকায় প্রভাবশালী পরিবার দাবী করলেও প্রকৃতপক্ষে দরিদ্র পরিবারের সন্তান । এ মিথ্যা দাপট দেখিয়ে সমাজের কারো কোন কথার তোয়াক্কা করেন না তারা।

    ঘটনার সূএে যানা যায়, ১৫ সেপ্টম্বর সকাল ১১টায় মুড়াপাড়া ছোট বানিয়াদি এলাকার মৃত অলিউল্লাহ ওরফে উলুর কন্যা মাহমুদা সাথী(২৬) ছোট ভাই শাকিল (২৩) চাচা সেলিম (৪০),শহিদুল্লাহ (৪২)সহ প্রায় ১০/১৫ জনের একটি সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে গন্ধবপুর এলাকায় মাছুম এর বসত বাড়ি গিয়ে জোড় পূর্বক প্রবেশ করে মাছুমকে না পেয়ে সাথী সহতার সঙ্গীয়রা পিতা মাতার উপর আক্রমন করে। বটি হাতে নিয়ে বাড়ি ঘর এলোপাথারী কোপাতে থাকে। এ খবর পেয়ে মাছুমের ছোট ভাই মাহফুজ তার কর্মস্হান হতে পরিবারকে বাচাতে আইনের সহযোগিতা নেবার আশায় রূপগঞ্জ থানায় যান একটি অভিযোগ করতে । চতুর সাথী এ খবর পেয়ে থানায় এসে উল্টো মাহফুজ ও তাকে মারধর করেছে এমন ঘটনা দেখিয়ে মামলাকরে পুলিশ দিয়ে গ্রেফতার করান। মাহফুজ ২০ সেপ্টেম্বর রবিবার নারায়ণগঞ্জ কোর্ট থেকে জামিনে মুক্তি পান।

    এ মামলায় মাহফুজ সহ তার ৭৪ বয়সি পিতা, ৬০ বয়সি মাতা সহ বাড়িতে উপস্হিত না থাকা দু ভাই কে আসামি করে পরিবারের সবাইকে যৌতুকের কারনে মারধরের মিথ্যা ঘটনার নাটক সাজিয়ে একটি মামলা করেন।এ মামলায় মাহফুজ কে গ্রেফতার দেখিয়ে পরেরদিন কোর্টে চালান করেন। যাহার মামলা নং ২৫ তারিখ ১৬-০৯-২০২১।যাহার ধারা-১১(গ)৩০ -২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধনী ২০০৩।

    সাথী সম্পর্কে ভূক্তভোগী পরিবারের কাছ থেকে যানা যায় যে, সে গত ২০২১ এর মার্চ মাসে মাহফুজ এর বড় ভাইকে কৌশলে ডেকে নিয়ে প্রতারনা করে বড় ভাই মাছুমের ইচ্ছার বিরুদ্ধে সাথী জোড় পূর্বক কাবিননামা কাগজে স্বাক্ষর নেন। পরিবার সাথীর হাত হতে বাচাঁতে সাথীর চাহিদামত টাকা পরিশোধ করে সাথীর উপস্হিতিতে যৌথ তালাক নামায় স্বাক্ষর করেন গত মে মাসে ।

    তালাকের পরও সাথী ভূক্তভোগী পরিবারের লোকজনকে ফাঁসাতে চক্রান্তের জাল বুনতে থাকে। যৌথ তালাক নামার পরও সাথী
    বিয়ে ও তালাকের কথা গোপন করে রূপগঞ্জ থানায় ১১মে ২০২১ইং তারিখে ৯(১)২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধনী ২০০৩ ধারায় একটি মামলা করেন। যাহার মামলা নং- ১১(০৫)২১। এর তিন মাস পর তার ইন্দোনে মুড়াপাড়ার মো হাছেন আলীর কন্যা উন্মে কুলসুম ঋতু (২১) সে ও একটি মামলা করেন ৯(১)২০০০সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধন ২০০৩। যাহার মামলা নং ১৬(০৮)২১। পর পর এ দুটি মামলায় মিথ্যা ঘটনার বিবরন উল্লেখ করে রুপগঞ্জ থানায় ।

    ভূক্তভোগি পরিবার একটি সভ্রান্ত ও শিক্ষিত পরিবার।তাই লোক লজ্জ্বার ভয়ে মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছে। কি ভাবে কি করবে তা ভেবে না পেয়ে এখন দিশেহারা।

    অপরদিকে মামলার বাদীপক্ষ অর্থ লোভী একটি প্রতারক চক্র।তারা এ মামলা দিয়ে অসহায় পরিবারকে আইন ও সমাজের চোখে হেয়প্রতিপন্ন করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেবার কৌশল অবলম্বন করতে যাচ্ছে। ভূক্তভোগী পরিবার আরো বলেন তারা দু জনই মামলা প্রত্যাহার করবে যদি আমরা তাদের চাহিদা মোতাবেক প্রত্যেককে ৫০ লক্ষ করে টাকা দেই। দুজন কে মোট ১কোটি টাকা দিতেহবে। তাদের এ মামলার কারনে পরিবারের সবাই এখন সমাজে লজ্জায় মুখ দেখাতে না পেরে গৃহছাড়া। সেই সাথে বাদী পক্ষের লোকজন দফায় দফায় মামলা দিয়ে বাসায় এসে মারমুখী আচরণ করে ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকার বিনিময়ে আপোষ মিমাংসা করার কৌশল অবলম্বন করছে সেইসাথে সংবাদপএেও মিথ্যা তথ্যদিয়ে ভূক্তভোগী পরিবারের অপপ্রচারের সংবাদ প্রকাশ করে যাচ্ছে। বাদীমহল একটি সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র। তাদের আনিত মিথ্যা অভিযোগে দায়ের করা মামলার সত্যতা যাচাই করে প্রকৃত সত্য ঘটনা উন্মোচন করে ন্যায় বিচারের স্বার্থে মামলা হতে অব্যহতি করা সহ দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী জানান ভুক্তভোগী পরিবার। এ সংবাদ প্রকাশের মধ্যদিয়ে ন্যায় বিচারের স্বার্থে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করতে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার সহ উচ্চ পর্যায়ের বিভাগীয় কতৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করছেন।

    আরও পড়ুন