২০শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
ভূমি জালিয়াতির আখড়া কেরাণীগঞ্জ রেকর্ড বহির্ভূত জাল দলিলেই হচ্ছে নামজারি সাংবাদিক সুরক্ষা আইন প্রণয়নের দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান সাম্প্রদায়িত সম্প্রীতি রক্ষায় মহানবী (সা.)’র আদর্শ সুমহান : ন্যাপ মহাসচিব সাংবাদিক জনি’র চীর বিদায় শেখ রেহানাকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া উচিত বলে মন্তব্য : ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী খুলনা জেলা ডিবি পুলিশের অভিযানে ফুলতলা হতে ৫ লিটার দেশী মদসহ গ্রেফতার ১ ঝিনাইদহে নিখোঁজ ইজিবাইক চালকের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার আগাম আলু চাষিদের স্বপ্ন এখন গুড়েবালি শ্বশুরবাড়ির অমানুষিক নির্যাতনে মিঠুনের মৃত্যু ৯৬ রানে অলআউট বিপর্যয়ে লঙ্কানরাও
  • প্রচ্ছদ
  • এক্সক্লসিভ >> চট্টগ্রাম
  • ৫ মাস পর মোবাইল উদ্ধার করে দেন ছাগলনাইয়া থানার ওসি
  • ৫ মাস পর মোবাইল উদ্ধার করে দেন ছাগলনাইয়া থানার ওসি

    ছাগলনাইয়া প্রতিনিধিঃ গতকাল হারিয়ে যাওয়ার ৫ মাস পর মোবাইল ফোন উদ্ধার করে দেন ছাগলনাইয়া থানার ওসি মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ। উল্লেখ্য যে, ছাগলনাইয়া কলেজ রোডে ভাড়া বাসায় থাকা ফেনী সরকারী কলেজের অনার্স ২য় বর্ষের ছাত্র মোঃ শরিফুল ইসলাম, পিতা মৃত আবদুল মান্নান, স্থায়ী ঠিকানা সাং- কলাডোবা, থানা- রামগড়, জেলা- খাগড়াছড়ি। বর্তমান ঠিকানাঃ পশ্চিম ছাগলনাইয়া কলেজ রোড রোকেয়া তাজ প্রোপ্রার্টি। গত ২৭ জুন ছাগলনাইয়া বাজারে গেলে মোবাইল ফোনটি অজ্ঞাত স্থানে হারিয়ে যায়। শরিফুল ইসলাম ২৮ জুন ছাগলনাইয়া থানায় একটি হারানো ডায়েরি করেন। বিষয়টি তদন্তের জন্য ওসি মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ এসআই আবু নোমানকে দায়িত্ব দেন। দীর্ঘ ৫ মাস পর ট্যাকিং এর মাধ্যমে মোবাইলটি উদ্ধার করে। শরিফুল ইসলামের হাতে তুলে দেন ওসি মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ। এ ব্যাপারে মোবাইলের মালিক শরিফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, আমি টিউশনি করে আমার জীবনের প্রথম রোজগার দিয়ে মোবাইল ফোনটি স্যামসং এ-২০ এস কিনেছিলাম। যার মুল্য ১৭ হাজার ৫ শত টাকা। আশা ছিল মোবাইল ফোনটি কখনো হাতে পাবোনা। কিন্তু ছাগলনাইয়া থানার ওসি মেজবাহ উদ্দিনের বিচ্ছক্ষনতায় এবং এসআই আবু নোমানের সহযোগিতায় মোবাইল ফোনটি হাতে পেয়ে ছাগলনাইয়া থানা পুলিশকে অন্তরের অন্তস্থল থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। ছাগলনাইয়া থানার ওসি মেজবাহ উদ্দিন আহমেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করে তার প্রকৃত মালিকের হাতে তুলে দিতে পেরে আমি খুশি। প্রকৃত চোর সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি জানান, মোবাইল ফোনটি রাস্তায় কুড়িয়ে পেয়ে একে অন্যের কাছে বিক্রি করিলে ৩য় ক্রেতার থেকে মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করা হয়।

    আরও পড়ুন