Breaking News
Home / প্রধান সংবাদ / না’গঞ্জে কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতির ৩য় ঢেউ মোকাবেলায় প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত

না’গঞ্জে কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতির ৩য় ঢেউ মোকাবেলায় প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত

নারায়ণগঞ্জে কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতির ৩য় ঢেউ মোকাবেলার প্রস্তুতির অংশ হিসেবে নারায়ণগঞ্জ জেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৫ মে) দুপুর সাড়ে ১২টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ সভার সভাপতিত্ব করেন। সভায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন সংযুক্ত অন্তত ১০টি শয্যা স্থাপনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এছাড়া ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ রোধে সবধরনের ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পাট ও বস্ত্র মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীর প্রতীক), নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমান,নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান,নারায়ণগঞ্জ-২ আসনের সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবু, নারায়ণগঞ্জ জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত সচিব রকিব উদ্দিন, জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম, জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি খন্দকার শাহ্ আলম, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, জেলা করোনা ফোকাল পারসন ডা. জাহিদুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ।

উপস্থিত বিভিন্ন দপ্তরের প্রতিনিধিরা জেলায় কোভিড সংক্রমন রোধে বিভিন্ন মতামত প্রদান করেন। বিশেষ করে সরকারি নিষেধাজ্ঞা শিথিল করা হলেও মাস্ক পরিধানের উপর জোর দেন তারা। এছাড়া করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল এবং ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে প্রয়োজনীয় সংখ্যক আইসিইউ বেড, ডায়ালাইসিস মেশিন, আইসোলেশন বেড, আইসোলেশন ওয়ার্ড, পোর্টেবল এক্সরে মেশিন, সিটি স্ক্যান মেশিন এবং সেন্ট্রাল অক্সিজেন সরবরাহের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এছাড়া করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ রোধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ সকল দপ্তরের পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। উল্লেখ্য, গত ১২ মে রূপগঞ্জ উপজেলায় ভারত ফেরত এক ব্যক্তির শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়।

সভায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে অন্তত ১০ শয্যায় অক্সিজেন লাইন সংযোজনের প্রস্তাব দেন জেলা করোনা ফোকাল পারসন ডা. জাহিদুল ইসলাম। এতে সভায় উপস্থিত অন্যরাও সহমত প্রকাশ করেন। এই বিষয়ে দ্রুতই ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ডা. জাহিদুল ইসলাম বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানার বিকল্প কিছু নেই। করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট বিভিন্ন সীমান্তবর্তী জেলায় শনাক্ত হচ্ছে। যেহেতু আন্তঃজেলা চলাচল অব্যাহত রয়েছে সেক্ষেত্রে এই ভ্যারিয়েন্ট নারায়ণগঞ্জেও ছড়িয়ে পড়ার সুযোগ রয়েছে। সেক্ষেত্রে মাস্ক পরতে হবে সকলকে। মাস্ক থুতনিতে ঝুলিয়ে রাখলে চলবে না। সবকিছু খোলা থাকলেও যথাযথভাবে মাস্ক পরলে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে সংক্রমণ রোধ সম্ভব। সকলের সুরক্ষা নিজের হাতে।

তিনি আরও বলেন, সভায় প্রচার-প্রচারণা বাড়ানোর দিকে জোর দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি হাসপাতালে অক্সিজেন সক্ষমতা পর্যাপ্ত রাখার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। কোভিড সংক্রমণ রোধে যথাযথ আইন প্রয়োগের ব্যাপারেও পরামর্শ দিয়েছেন অন্যরা।

জেলা প্রশাসক ও সভাপতি মোস্তাইন বিল্লা, জেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটি, নারায়ণগঞ্জ সবাইকে সরকারি বিধি-নিষেধ প্রতিপালনসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য অনুরোধ জানান।

Check Also

সরকারি রাস্তা দখল করে মণিরামপুরে পাঁকা দোকানঘর নির্মাণের অভিযোগ

মণিরামপুর প্রতিনিধি: মণিরামপুরের কোনাকোলা বাজারে এক প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে সরকারি রাস্তার জমি দখলের পর পাকা স্থাপনা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *